|| মাটি এন্টারটেইনমেন্ট

প্রকাশিত: ১৬:৫০, ১৭ জানুয়ারি ২০২৩

বিভাগের পাঠকপ্রিয়

চট্টগ্রাম ভূজপুর হতে ১২২ কেজি গাঁজা উদ্ধারসহ ০৩ জন আটক

চট্টগ্রাম ভূজপুর হতে ১২২ কেজি গাঁজা উদ্ধারসহ ০৩ জন আটক

র‌্যাব-৭, চট্টগ্রামের মাদক বিরোধী একটি অভিযানে চট্টগ্রাম জেলার ভূজপুর এলাকা হতে ১২২ কেজি গাঁজা উদ্ধারসহ ০৩ জন মাদক ব্যবসায়ীকে আটক; মাদক পরিবহনে ব্যবহৃত ০১টি মাইক্রোবাস ও ০১ টি প্রাইভেটকার জব্দ।

বাংলাদেশ আমার অহংকার এই স্লোগান নিয়ে র‌্যাপিড এ্যাকশন ব্যাটালিয়ন (র‌্যাব) প্রতিষ্ঠালগ্ন থেকে বিভিন্ন ধরণের অপরাধীদের গ্রেফতারের ক্ষেত্রে জোরালো ভূমিকা পালন করে আসছে। র‌্যাব সৃষ্টিকাল থেকে সমাজের বিভিন্ন অপরাধ এর উৎস উদঘাটন, অপরাধীদের গ্রেফতারসহ আইন শৃঙ্খলা পরিস্থিতির সার্বিক উন্নয়নে নিরলসভাবে কাজ করে চলেছে। র‌্যাব-৭, চট্টগ্রাম অস্ত্রধারী সস্ত্রাসী, ডাকাত, ধর্ষক, দুর্ধষ চাঁদাবাজ, সন্ত্রাসী, খুনি, ছিনতাইকারী, অপহরণকারী ও প্রতারকদের গ্রেফতার এবং বিপুল পরিমাণ অবৈধ অস্ত্র, গোলাবারুদ ও মাদক উদ্ধারের ক্ষেত্রে জিরো টলারেন্স নীতি অবলম্বন করায় সাধারণ জনগনের মনে আস্থা ও বিশ্বাস অর্জন করতে সক্ষম হয়েছে।

 র‌্যাব-৭, চট্টগ্রাম গোপন সংবাদের ভিত্তিতে জানতে পারে যে, কতিপয় মাদক ব্যবসায়ী একটি মাইক্রোবাস ও একটি প্রাইভেটকার যোগে মাদকদ্রব্য গাঁজা বহন করে বিক্রির উদ্দেশ্যে চট্টগ্রাম জেলার ভূজপুর থানাধীন করের হাট হতে রামগড়ের দিকে যাচ্ছে। উক্ত তথ্যের ভিত্তিতে গত ১৬ জানুয়ারি ২০২৩ ইং রাত ১৯৩০ ঘটিকায় র‌্যাব-৭, চট্টগ্রামের একটি আভিযানিক দল চট্টগ্রাম জেলার ভূজপুর থানাধীন করেরহাট-রামগড় রোডের পাকা রাস্তার উপর একটি অস্থায়ী চেকপোষ্ট স্থাপন করে গাড়ী তল্লাশী শুরু করে। এসময় র‌্যাবের চেকপোস্টের দিকে আসা একটি মাইক্রোবাস ও একটি প্রাইভেটকারের গতিবিধি সন্দেহজনক মনে হলে র‌্যাব সদস্যরা উক্ত গাড়ী দুটি থামানোর সংকেত দিলে উক্ত গাড়ী দুটি না থামিয়ে পালিয়ে যাওয়ার চেষ্টা করলে র‌্যাব সদস্যরা গাড়ীসহ আসামী ১। মোঃ ইউসুফ মিয়া (৫০), পিতা- মৃত অলি আহম্মেদ, সাং- সিজিয়ারা, থানা- নাঙ্গলকোর্ট, ২।

মোঃ বেলাল হোসেন (৩৫), পিতা- মৃত চৌধুরী মিয়া, সাং- আমানগন্ডা, থানা- চৌদ্দগ্রাম, উভয় জেলা- কুমিল্লা এবং ৩। বিফক দাশ (৩৭), পিতা- মৃত ননা দাশ, সাং- দক্ষিন রাঙ্গামাটি কচুয়ার পাড়, থানা- ফটিকছড়ি, জেলা- চট্টগ্রাম’দেরকে আটক করতে সক্ষম হয়। পরবর্তীতে উপস্থিত সাক্ষীদের সম্মুখে আটককৃত আসামীদেরকে জিজ্ঞাসাবাদ ও তল্লাশী করে তাদের হেফাজতে থাকা উক্ত মাইক্রোবাস ও প্রাইভেটকারের পিছনের সীটের উপর হতে ০৫ টি প্লাস্টিকের বস্তার ভিতর হতে মোট ১২২ কেজি গাঁজা উদ্ধারসহ আসামীদের’কে গ্রেফতার করা হয় এবং মাদক পরিবহনে ব্যবহৃত প্রাইভেটকার ও মাইক্রোবাসটি জব্দ করা হয়। 

 আটককৃত আসামীদের প্রাথমিক জিজ্ঞাসাবাদে জানা যায় যে, তাঁরা দীর্ঘদিন যাবৎ পরস্পর যোগসাজসে ড্রাইভিং পেশার আড়ালে সুকৌশলে মাদকদ্রব্য গাঁজা কুমিল্লা জেলার সীমান্তবর্তী এলাকা থেকে স্বল্প মূল্যে ক্রয় করে পরবর্তীতে চট্টগ্রাম, কক্সবাজারসহ পার্শ্ববর্তী জেলার বিভিন্ন মাদক ব্যবসায়ী ও মাদক সেবনকারীদের নিকট অধিক মূল্যে বিক্রি করে আসছে। উদ্ধারকৃত মাদকদ্রব্যের আনুমানিক মূল্য ১৮ লক্ষ টাকা। 

 উল্লেখ্য, সিডিএমএস পর্যালোচনা করে গ্রেফতারকৃত আসামী মোঃ ইউসুফ মিয়া এর বিরুদ্ধে কুমিল্লা জেলার বিভিন্ন থানায় ০৩ টি  এবং বেলাল হোসেন এর বিরুদ্ধে চট্টগ্রাম জেলার ভূজপুর থানায় ০১ টি মাদক আইনে মামলা পাওয়া যায়।

গ্রেফতারকৃত আসামী এবং উদ্ধারকৃত মাদকদ্রব্য সংক্রান্তে পরবর্তী আইনানুগ ব্যবস্থা গ্রহণের নিমিত্তে সংশ্লিষ্ট থানায় হস্তান্তর করা হয়েছে।